রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:৪১ অপরাহ্ন
১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ বসন্তকাল, ১৪ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি
ব্রেকিং নিউজ
গুচ্ছভুক্ত ২৪ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার আবেদনের সময় একদিন বাড়ানো হয়েছে মাতৃগর্ভে থাকা শিশুর লিঙ্গ পরিচয় প্রকাশ করা যাবে না বলে রায় দিয়েছেন হাসপাতালগুলোর ব্যবস্থাপনা তদারকি করতে মঙ্গলবার অভিযান শুরু: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর পদত্যাগ দাবিতে দেশটিতে তুমুল বিক্ষোভ চলছে চলতি বছরের এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা জুন মাসের শেষের দিকে হতে পারে শবে বরাত বা লাইলাতুল শবে বরাতের আমল ও ফজিলত আজ পবিত্র শবেবরাত আজকে কোন টিভি চ্যানেলে কোন খেলা পবিত্র শবে বরাতের মাহাত্ম্যে উদ্বুদ্ধ হয়ে মানবকল্যাণ ও দেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগ করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর বিশ্ব ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আনা বেয়ার্দ একদিনের সফরে ঢাকা এসে পৌঁছেছেন

মহামারীর কারণে চলতি বছর ফেব্রুয়ারিতে অমর একুশে গ্রন্থমেলা (বইমেলা) হচ্ছে না

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১১ জানুয়ারি, ২০২১
  • ১৬৯ Time View
প্রকাশকদের দাবি থাকলেও করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে চলতি বছর ফেব্রুয়ারিতে অমর একুশে গ্রন্থমেলা (বইমেলা) হচ্ছে না।

সরকারের এ সিদ্ধান্ত জানিয়ে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী রোববার রাতে গণমাধ্যমকে বলেন, সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়েছে, এই পরিস্থিতিতে ফেব্রুয়ারিতে শারীরিক উপস্থিতিতে বইমেলার আয়োজন সম্ভব নয়। পরিস্থিতির উন্নতি হলে বা ভালোর দিকে গেলে আমরা সিদ্ধান্ত নেব বইমেলা কখন হবে।

অমর একুশে গ্রন্থমেলার অন্যতম আয়োজক বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির পক্ষ থেকে গত ৫ জানুয়ারি এক সভায় আবেদন জানানো হয়, ফেব্রুয়ারিতে না পারলেও আগামী মার্চ মাসের মধ্যেই যেন বইমেলার আয়োজন করা হয়।

প্রকাশকদের প্রস্তাবের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, আমরা আপাতত বইমেলা স্থগিত করেছি। পরিস্থিতি বিবেচনায় তাদের সাথে কথা বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

মহামারির বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে এবারের বইমেলার আয়োজন স্থগিত রাখার জন্য গত মাসে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেছিল বাংলা একাডেমি কর্তৃপক্ষ।

কিন্তু বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতি তাতে আপত্তি জানিয়ে বলেছিল, খোলা আকাশের নিচে, বিশাল জায়গাজুড়ে যেভাবে প্রতিবছর হয়ে আসছে, এবারো তারা সেভাবেই একুশে বইমেলায় অংশ নিতে চান।

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানান, বিষয়টি নিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের মধ্যে চিঠি চালাচালি হয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এবার ‘ভার্চুয়ালি’ বইমেলা আয়োজনের সুপারিশ করা হয়েছিল। কিন্তু তা নিয়েও প্রকাশকদের আপত্তি ছিল।

এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে হাবিবুল্লাহ সিরাজী বলেন, আমরা ভার্চুয়ালি করব কিনা, সেটা এখনও সিদ্ধান্ত নিইনি। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়ে অচিরেই জানাব আলোচনা সভা ও অন্যান্য অনুষ্ঠান কীভাবে করা যায়।”

এ বিষয়ে কথা বলতে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদকে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি সাড়া দেননি।

বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি ফরিদ আহমেদ বলেছেন, ফেব্রুয়ারি মাসে বইমেলা স্থগিত করার বিষয়ে তারা এখনও চূড়ান্ত কিছু জানেন না।
আমরা বলেছিলাম, মধ্য ফেব্রুয়ারির দিকে বইমেলা শুরু করে মার্চ মাসের মধ্যে শেষ করতে। আমাদের প্রস্তাবটা সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়েও পাঠানো হয়েছিল। এখন বইমেলা হবে না, সেটা কি সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়েরই সিদ্ধান্ত কি না সেটা আমরা জানি না। বাংলা একাডেমি সেটা আনুষ্ঠানিকভাবে সমিতিকে জানায়নি।

তবে বইমেলার আয়োজন যখনই করা হোক, পর্যাপ্ত সময় হাতে রেখে যেন প্রকাশকদের জানানো হয়, সে অনুরোধ বাংলা একাডেমিকে করা হয়েছে বলে জানান ফরিদ।

১৯৭২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি ভাষা দিবসের অনুষ্ঠানে বাংলা একাডেমির গেইটে চট বিছিয়ে বই বিক্রি শুরু করেন মুক্তধারা প্রকাশনীর মালিক চিত্তরঞ্জন সাহা। ১৯৭৭ সালে তার সঙ্গে আরও অনেকে যোগ দেন।

১৯৭৮ সালে বাংলা একাডেমির তৎকালীন মহাপরিচালক আশরাফ সিদ্দিকী বাংলা একাডেমিকে এ বইমেলার সঙ্গে সম্পৃক্ত করেন। পরের বছর মেলার সঙ্গে যুক্ত হয় বাংলাদেশ পুস্তক বিক্রেতা ও প্রকাশক সমিতি।

১৯৮৩ সালে মনজুরে মওলা বাংলা একাডেমির মহাপরিচালকের দায়িত্বে থাকার সময় ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা’ নামে এ মেলা আয়োজনের প্রস্তুতি নেওয়া হলেও তা আর করা যায়নি। পরের বছর ১৯৮৪ সালে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে ‘অমর একুশে বইমেলা’র সূচনা হয়।

মাতৃভাষার অধিকার আদায়ের মাস ফেব্রুয়ারিজুড়ে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণের এই বইমেলা এখন বাঙালির মননের মেলায় পরিণত হয়েছে।

প্রতিবছর ১ ফেব্রুয়ারি এ মেলার পর্দা উঠলেও ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে ভোট থাকায় গত বছর অমর একুশে গ্রন্থমেলা একদিন পিছিয়ে ২ ফেব্রুয়ারি শুরু হয়।

ততদিনে চীন ছাড়িয়ে করোনাভাইরাস অন্যান্য দেশে পৌঁছাতে শুরু করলেও বাংলাদেশে এর প্রকোপ দেখা দেয়নি। ফলে ফেব্রুয়ারির শেষে নির্বিঘ্নেই মেলার সমাপ্তি ঘটে।

বাংলা একাডেমির তথ্য অনুযায়ী, গতবছর মেলায় নতুন বই আসে চার হাজার ৯১৯টি। সব মিলিয়ে দুই কোটি ৪০ লাখ টাকার বই বিক্রি হয়।

মহামারীর কারণে গতবছর মুজিববর্ষের বিপুল আয়োজন কমিয়ে ফেলতে হয়েছে। প্রায় সব ধরনের উৎসব আয়োজনেই বিধিনিষেধের সীমা টেনে দেওয়া হয়েছে অতি ছেঁয়াচে এই ভাইরাসের কারণে।

More News Of This Category
© স্বর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102