বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৫:০৬ অপরাহ্ন
৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ বসন্তকাল, ১১ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি
ব্রেকিং নিউজ
রাখাইন প্রদেশের একটি হাসপাতালে বোমা হামলা চালানোর অভিযোগ উঠেছে জান্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে সমুদ্রসীমার সম্পদ আহরণ করে দেশের মানুষের আর্থ সামাজিক উন্নয়নে কাজে লাগানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী আইসিজে শুনানিতে অংশ নিয়ে আবারো ইসরায়েলের নিরাপত্তায় জোর দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আজকে কোন টিভি চ্যানেলে কোন খেলা পোস্তগোলা সেতুর (বুড়িগঙ্গা-১) দুটি গার্ডারের মেরামত ও রেট্রোফিটিংয়ের কাজ শুরু হচ্ছে আজ আপাতত ছাপানো টাকা বাজারে ছাড়বে না কেন্দ্রীয় ব্যাংক ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ: ২০০ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা বিশ্বের অর্ধেকেরও বেশি অঞ্চল হামের প্রাদুর্ভাবের উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে : ডব্লিউএইচও সুন্নতে খতনা করতে গিয়ে শিশুর মৃত্যু: দুই চিকিৎসক গ্রেপ্তার, বন্ধ হাসপাতাল শ্রদ্ধায় শোকে ভাষাশহীদদের স্মরণ

সংসদে প্রধানমন্ত্রী বাসে আগুনের বিষয়ে ফোনালাপ শোনালেন

অনলাইন ডেস্ক
  • Update Time : সোমবার, ১৬ নভেম্বর, ২০২০
  • ২৫০ Time View

সোমবার সংসদে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হারুনুর রশীদের বক্তব্যের পাল্টায় সরকার প্রধান ফোনালাপের রেকর্ডটি শুনিয়ে বলেন, বিএনপিই এই কাজ করে এখন আওয়ামী লীগের ঘাড়ে দোষ চাপাচ্ছে।

গত বৃহস্পতিবার ঢাকা-১৮ আসনে উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণের মধ্যে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে মোট ১১টি বাসে আগুন দেওয়া হয়।

বাস পোড়ানোর জন্য বিএনপিকে দায়ী করেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতারা। অন্যদিকে বিএনপি নেতারা দাবি করেন, তাদের ফাঁদে ফেলতে ক্ষমতাসীনরাই বাস পুড়িয়েছে।

সোমবার সংসদে অনির্ধারিত আলোচনায় বিএনপির হারুন এই প্রসঙ্গ টেনে বলেন, বিএনপির নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যমূলকভাবে মামলায় জাড়ানো হচ্ছে।

তিনি এই নাশকতার সঙ্গে জড়িতদের খুঁজতে সংসদীয় কমিটি গঠনের দাবি জানান স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর কাছে। হারুন বলেন, ওই কমিটি গঠন হলে সাতদিনের মধ্যে জড়িতদের খুঁজে বের করা যাবে।

এরপর সংসদ নেতা শেখ হাসিনা দাঁড়িয়ে তার মোবাইল ফোন থেকে এক ফোনালাপের রেকর্ড সবাইকে শোনান।

তাতে বাস পোড়ানোর ঘটনা নিয়ে এক ব্যক্তি ও এক নারীকে আলাপ করতে শোনা যায়। নারী কণ্ঠ বলছিলেন, ‘যুবদলের ছেলেরা’ বাসে আগুন দিয়েছে।

রেকর্ডটি শেষ হলে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, “অত্যন্ত দুঃখের সাথে বলতে হয়, উনি বিএনপির সংসদ সদস্য, আমার সামনের সিটেই উনাকে বসিয়েছি। বিভিন্ন সময় এমন এমন কথা উনি তোলেন। সবসময় আমরা উত্তরও দিই না।

“আজকে উনি যেভাবে কথাটা বললেন, উনার মনে হয় নিজেদের পার্টি সম্পর্কে তথ্যগুলো জেনে নিয়ে কথাগুলো বলা উচিত ছিল।”

আগুন দেওয়ায় জড়িতদের ছবিও পেয়েছেন বলে সংসদে জানান প্রধানমন্ত্রী।

“এখন প্রযুক্তির কারণে সব জায়গায় সিসি ক্যামেরা আছে। হাতেনাতে ধরা পড়ে যাচ্ছে। কারা আগুন দিচ্ছে, ছবিও আছে আমার কাছে। সুযোগ থাকলে এখানে দেখাতে পারি। একটা মিছিল চলে যাওয়ার সাথে সাথে কটা লোক গিয়ে বাসে দিয়াশলাইয়ের কাঠি জ্বালিয়ে আগুন দিয়ে দিল। আমার কাছে ছবি আছে। রাস্তায় সিসি ক্যামেরা থেকে সেটা নেওয়া। নিজেরা আগুন-টাগুন দিয়ে পার্লামন্টে এসে সরকারের ওপর দোষারোপ চাপান। উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপানো এটা তাদের অভ্যাস।”

নির্বাচনে কারচুপি নিয়ে বিএনপির অভিযোগের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, “আদৌ তারা নির্বাচন করে কি না? নির্বাচনে অংশ নেন। নমিনেশন নিচ্ছেন, যাচ্ছেন। কিন্তু তাদের না কাজ, না প্রচার কিংবা নির্বাচনের দিনে কোথাও একটা এজেন্টও ঠিকমত দেবে না। কোনো কিছু করবে না।

“মাননীয় স্পিকার আপনি যদি প্রতিটি উপ-নির্বাচন দেখেন, একটা সময়ের পর তারা নির্বাচন থেকে প্রত্যাহার করেই অমনি বলে, ‘নির্বাচন ঠিক হচ্ছে না’। আসলে জনগণের সমর্থন তারা হারিয়েছে অনেক আগেই। ২০০১ সালে চক্রান্ত করে ক্ষমতায় আসার পর।

“তারপর থেকে যে সমস্ত ঘটনাগুলি ঘটিয়েছে, বিশেষ করে তাদের সন্ত্রাস, মানুষ খুন করা, নারী নির্যাতন থেকে শুরু করে এমন কোনো অপরাধ নাই ২০০১ সালে বিএনপি করে নাই। ১ অক্টোবর থেকে শুরু। হাজার হাজার মেয়েদের ওপর পাশবিক অত্যাচার, তারপর আসে অগ্নিসন্ত্রাস। জীবন্ত মানুষগুলোকে পুড়িয়ে পুড়িয়ে হত্যা করেছে। এটাই তাদের আন্দোলন। মানুষ খুন করা। আবার ঢাকার দুটো সিটে নির্বাচন। একটা সিটে যখন নির্বাচন হচ্ছে, তখন কয়েকটা বাসে আগুন দেওয়া। তারা নিজেরা আগুন দিয়ে দোষ দিচ্ছে এটা নাকি সরকারি এজেন্ট!”

More News Of This Category
© স্বর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102