বুধবার, ২২ মার্চ ২০২৩, ০৯:১০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
সারাদেশে একই পদ্ধতিতে খতম তারাবি পড়ার আহ্বান রমজানে মাধ্যমিক-কলেজে ছুটি, প্রাথমিকে ক্লাস ১৫ দিন রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে পুরো বিশ্বকে ভুগতে হচ্ছে আরাভ খান দুবাইয়ে গ্রেপ্তার হননি : পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী রোজা কবে শুরু, জানা যাবে কাল ৬৮৬ জনকে অধ্যাপক পদে পদোন্নতি দিয়েছে সরকার ঈদের আগেই প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পাচ্ছে আরও ৪০ হাজার পরিবার দুর্নীতি দমন করতে গিয়ে দুদকের কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী যাতে দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত না হয় আইরিশদের ভাগ্যে স্বস্তি নিয়ে এসেছে বৃষ্টি; দ্বিতীয় ওয়ানডেটি পরিত্যক্ত সাফ অনূর্ধ্ব-১৭ নারী চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশ নিজেদের প্রথম ম্যাচে ৮-১ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে ভুটানকে

সু চির জনগণকে অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে নামার আহ্বান

আন্তজার্তিক ডেস্ক
  • Update Time : সোমবার, ১ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৯৮ Time View

গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির গৃহবন্দি অবস্থা থেকে মুক্তির মধ্যদিয়ে মিয়ানমারে বছর দশেক আগে যে ‘স্বাধীন যুগ’ শুরু হয়েছিল তা আবার শেষ হলো তাকে গ্রেপ্তারের মধ্য দিয়ে।

সোমবার মিয়ানমার সেনাবাহিনী ক্ষমতাসীন ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) নেত্রী অং সান সু চি, দেশটির প্রেসিডেন্ট ও দলটির অন্যান্য জ্যেষ্ঠ নেতাদের আটক করে। একই সঙ্গে দেশটিতে এক বছরের জন্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে।

মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে জনগণকে বিক্ষোভে নামার আহ্বান জানিয়েছেন সু চি। দেশটির ক্ষমতাসীন দল ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে সোমবার একটি বিবৃতি প্রকাশ করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, দেশের জনগণের সামরিক অভ্যুত্থান মেনে নেয়া উচিত নয় এবং এর বিরুদ্ধে অবশ্যই বিক্ষোভ করা উচিত। খবর রয়টার্সের।

সোমবার সকালে আটকের পর থেকেই সু চি এবং তার দলের অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ নেতা কর্মীদের আর জনসম্মুখে দেখা যায়নি। দেশের সেনাবাহিনী যে পদক্ষেপ নিয়েছে তার ফলে দেশে আবারও স্বৈরতান্ত্রিক শাসন চালু হবে বলে এক বিবৃতিতে উল্লেখ করেছে এনএলডি। সু চির নাম নিয়েই এসব বিবৃতি দেয়া হলেও সেখানে তার স্বাক্ষর ছিল না।

সু চির পক্ষ থেকে ওই বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘এই সামরিক অভ্যুত্থান মেনে না নিতে আমি লোকজনকে আহ্বান জানাচ্ছি। আন্তরিকভাবে সবাই এই বিক্ষোভের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলুন।’

এনএলডির চেয়ারম্যান উইন হেইন একটি বিবৃতি জারি করেছেন। তার হাতে লেখা ওই বিবৃতিকে নির্ভরযোগ্য এবং এটি সু চির ইচ্ছার প্রতিফলন বলেই উল্লেখ করা হয়েছে। উইন হেইন বলেন, আমার জীবনের দিব্যি দিয়ে বলছি এটা অং সান সুচির নির্ভরযোগ্য বিবৃতি যা তিনি জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

এদিকে, মিয়ানমারে সব ধরনের আর্থিক কার্যক্রম বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির বিভিন্ন ব্যাংক। সোমবার দেশজুড়ে জরুরি অবস্থা জারি এবং ইন্টারনেট সংযোগ দুর্বল হয়ে পড়ার পরেই এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

মিয়ানমার ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, বর্তমান রাজনৈতি পরিস্থিতিতে ইন্টারনেট সেবা ব্যহত হওয়ায় দেশটির সব ব্যাংক তাদের সব ধরনের আর্থিক কার্যক্রম বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সব ব্যাংকের কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধ রাখার বিষয়ে মিয়ানমারের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমতি নেয়া হবে এবং কবে থেকে সব কার্যক্রম আবারও শুরু হবে সে বিষয়টি পরবর্তীতে জানিয়ে দেয়া হবে।

সোমবার সকালে এক বছরের জরুরি অবস্থা জারি করে ক্ষমতা গ্রহণ করেছে দেশটির সেনাবাহিনী। ক্ষমতাসীন দল ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) প্রধান অং সান সু চি, দেশটির প্রেসিডেন্ট উইন মিন্টসহ বেশ কয়েকজনকে আটকের পর পরই জরুরি অবস্থা জারি করা হয়।

এনএলডির মুখপাত্র মিও নিয়ুন্ট জানিয়েছেন, সোমবার সকালে অভিযান চালিয়ে এসব নেতাকে আটক করা হয়েছে। গত নভেম্বরের সাধারণ নির্বাচনের ফলাফলকে জালিয়াতি বলে উল্লেখ করেই মূলত ক্ষমতা দখল করেছে সেনাবাহিনী। কমান্ডার-ইন-চিফ মিন অং হ্লেইংয়ের কাছে দেশের ক্ষমতা হস্তান্তর করা হয়েছে।

জরুরি অবস্থার মধ্যেই রাজধানী নাইপিদোতে মোবাইল ফোন ও রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন এবং রেডিওর প্রচার বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। তবে সামরিক বাহিনী নিয়ন্ত্রিত টেলিভিশন মায়াবতির সম্প্রচার চালু রয়েছে। সোমবার সেনাবাহিনীর ক্ষমতা গ্রহণের বিষয়টি মায়াবতির মাধ্যমে সম্প্রচার করা হয়েছে। টেলিভিশনের এক বিবৃতিতে জানানো হয় যে, কমান্ডার-ইন-চিফ মিন অং হ্লেইং দেশের ক্ষমতা গ্রহণ করেছেন।

গার্ডিয়ানের এক নিবন্ধে সু চির গ্রেপ্তারের ঘটনাটিকে ‘মিয়ানমারের ১০ বছরের স্বাধীনতার অবসান’ হিসেবে মন্তব্য করা হয়েছে।

এতে বলা হয়, ২০১০ সালের নভেম্বরে এমনই এক শীতের সন্ধ্যায় মিয়ানমারে শুরু হয়েছিল এক ইতিহাসের। যে দেয়াল সাধারণ মানুষ থেকে সু চিকে আলাদা করে রেখেছিল, সেই দেয়াল তুলে তাকে ‘মুক্তি’ দেয় সেনাবাহিনী।

সু চির গৃহবন্দি অবস্থা থেকে মুক্তি দেওয়ার ঘটনা বিশ্ব রাজনীতিতে এক নতুন মাত্রা যোগ করে। মিয়ানমারের জাতির পিতা অং সানের মেয়ে সু চি কথা বলেন গণতন্ত্রের অগ্রযাত্রা নিয়ে।

গণতন্ত্রের জন্য জান্তা শাসনের বিরুদ্ধে দীর্ঘ লড়াই-সংগ্রাম করেন সু চি। এ জন্য তাকে প্রায় ১৫ বছর গৃহবন্দি থাকতে হয়। তিনি ১৯৯১ সালে শান্তিতে নোবেল পান। ২০১০ সালের ১৩ নভেম্বর তিনি গৃহবন্দি অবস্থা থেকে মুক্তি পান।

২০১৫ সালের নভেম্বরে মিয়ানমারে অনুষ্ঠিত প্রথম অবাধ নির্বাচনে সু চির এনএলডি বিপুল জয় পায়। ২০১৬ সালের শুরুর দিকে ক্ষমতায় বসে এনএলডি। সু চির সরকারের সময়েই মিয়ানমারের রাখাইনে বর্বরতার শিকার হয় রোহিঙ্গারা। লাখো রোহিঙ্গা পালিয়ে আশ্রয় নেয় বাংলাদেশে।

সর্বশেষ গত বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনকে ঘিরে মিয়ানমারের বেসামরিক সরকার ও প্রভাবশালী সামরিক বাহিনীর মধ্যে কয়েকদিন ধরে দ্বন্দ্ব ও উত্তেজনা চলছিল।

এরই এক পর্যায়ে সোমবার সেনাবাহিনী দেশটিতে জরুরি অবস্থা জারি করে। সামরিক বাহিনী পরিচালিত টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক ভিডিও ভাষণে বলা হয়েছে, সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান সিনিয়র জেনারেল মিং অং লাইংয়ের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করা হয়েছে।

More News Of This Category
© স্বর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102